সাইফও হেনস্তার শিকার

admin

‘#মি টু’ প্রচারণা
সাইফও হেনস্তার শিকার!

‘আমার কেরিয়ারেও আমাকে হেনস্তার মুখে পড়তে হয়েছে। যৌন হেনস্তা নয়। তবে ২৫ বছর আগে আমাকে যেভাবে হেনস্তা হতে হয়েছিল, তা মনে হলে এখনো রাগ হয়।’ বললেন সাইফ আলী খান। সংবাদ সংস্থা পিটিআইকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলিউডের এই জনপ্রিয় তারকা আরও বলেন, ‘যখন যে ব্যক্তিকে হেনস্তা করা হয়, অপমান করা হয়, সেই কষ্ট শুধু তিনিই অনুভব করতে পারেন। অন্য কারও পক্ষে তা অনুভব করা সম্ভব না।’ তবে তিনি মনে করেন, কেউ যদি কারও বিরুদ্ধে হেনস্তার অভিযোগ করেন, তাহলে এখন এ ব্যাপারে নজর দেওয়ার দরকার। এড়িয়ে গেলে চলবে না। আর যৌন হেনস্তা তো আরও গুরুতর।
এরই মধ্যে ‘#মি টু’ প্রচারণাকে সমর্থন জানিয়েছেন সাইফ আলী খান। যাঁরা নিজেদের না-বলা কথা এখন সবার সামনে তুলে ধরছেন, তিনি সেসব অভিযোগকে গুরুত্ব দিচ্ছেন। তিনি বললেন, ‘যেখানে মেয়েদের অসম্মান করা হয়, যদি তা জানতে পারি, তাহলে সেই পরিবেশে আমি কাজ করব না। এমনকি যে ব্যক্তি এমন কাজের সঙ্গে জড়িত, তাঁর সঙ্গে আমি ভবিষ্যতেও কাজ করব না। আমাদের সবার একই নীতি হওয়া উচিত।’
সাইফ আলী খানের মেয়ে সারা আলী খান বলিউডের জগতে পা রেখেছেন। চলচ্চিত্রে অভিনয় শুরু করেছেন। তাঁকে যদি কখনো এমন হেনস্তার মুখোমুখি হতে হয়? ‘আমার মেয়ের সঙ্গে যদি কেউ অভব্য আচরণ করে, তাহলে তাকে কষিয়ে থাপ্পড় মারব। পেটাব। ছেড়ে দেব না। এই ঘটনার জন্য যদি আমার বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগ করা হয়, আমি সেখানেও যেতে রাজি আছি। কিন্তু কোনোভাবেই ছেড়ে দেব না।’ বললেন সাইফ আলি খান।
আরও জানালেন, শুধু মেয়ে সারা আলি খান নন; এ ধরনের কোনো ঘটনা যদি তাঁর স্ত্রী কারিনা কাপুর খান, বোন সোহা আলী খান কিংবা মা শর্মিলা ঠাকুরের সঙ্গেও ঘটে, যদি তাঁদের সঙ্গে কেউ কোনো খারাপ ব্যবহার করেন, তাহলে তাঁকেও ছেড়ে দেবেন না।
এদিকে ২০১৪ সালে ‘হামসকলস’ ছবির শুটিংয়ের সময় পরিচালক সাজিদ খান অভব্য আচরণ করেছিলেন, অভিনেত্রী বিপাশা বসুর এমন অভিযোগের ব্যাপারে সাইফ আলি খানকে জিজ্ঞেস করা হয়। তিনি বলেন, ‘এমন কোনো ঘটনা আমি মনে করতে পারছি না। যদি আমার সামনে ঘটত, তাহলে অবশ্যই বাধা দিতাম। কোনোভাবেই হতে দিতাম না।’
সাজিদ খানের বিরুদ্ধে যৌন হেনস্তার অভিযোগ করেছেন র‍্যাচেল হোয়াইট, সালোনি চোপড়া, এক সাংবাদিকসহ আরও কয়েকজন নারী। এরপর ‘হাউসফুল ফোর’ ছবির পরিচালনার দায়িত্ব থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন পরিচালক, কৌতুক অভিনেতা ও উপস্থাপক সাজিদ খান। গত শুক্রবার সাজিদ খান টুইটারে লিখেছেন, তাঁর বিরুদ্ধে যে অভিযোগ উঠেছে, তা আগে তদন্ত হওয়া উচিত। পাশাপাশি ‘হাউসফুল ফোর’ ছবির পরিচালনা থেকে তাঁকে সরিয়ে দেওয়ার জন্য প্রযোজক ও অভিনেতা বন্ধুরা যে আবেদন করেছেন, তার সঙ্গে তিনি নিজেও একমত।
সাজিদ খানের পর ‘হাউসফুল ফোর’ ছবি থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন নানা পাটেকার। তাঁর বিরুদ্ধে পুলিশের কাছে যৌন হেনস্তার অভিযোগ করেছেন ২০০৪ সালের ‘মিস ইন্ডিয়া’ ও একসময়ের বলিউড তারকা তনুশ্রী দত্ত। তিনি যৌন হেনস্তার ঘটনার যথাযথ বিচার পাওয়ার জন্য নানা পাটেকার এবং অন্য অভিযুক্ত ব্যক্তিদের লাই ডিটেক্টর টেস্ট, নারকো ও ব্রেইন ম্যাপিংয়ের দাবি করেছেন। মুম্বাইয়ের ওশিওয়াড়া থানায় তাঁর আইনজীবী নিতীন সাতপুতের মাধ্যমে তিনি এই আবেদন করেছেন।
যৌন হয়রানির অভিযোগে অভিনেতা নানা পাটেকার, কোরিওগ্রাফার গণেশ আচার্যসহ চারজনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার মুম্বাইয়ের ওশিওয়াড়া থানায় মামলার পর এ বিষয়ে তনুশ্রী দত্তের জবানবন্দি নিয়েছে পুলিশ।
তথ্যসূত্র : পিটিআই, প্রথম আলো : ১৫ অক্টোবর ২০১৮

Share us
Next Post

কাকে টুকরো টুকরো করতে চেয়েছিলেন লতা

কাকে টুকরো টুকরো করতে চেয়েছিলেন লতা! তরুণ বয়সে ভীষণ রগচটা ছিলেন শিল্পী লতা মঙ্গেশকর। যে কারণে দুষ্টু লোকেরা তাঁর ধারেকাছে ঘেঁষতে ভয় পেত। কেউ উল্টোপাল্টা কিছু করলে বিপদে পড়ে যেত। গুজব ছড়ানোর জন্য একবার একজনের ওপর তিনি এমন ক্ষেপে গিয়েছিলেন যে, তাঁকে টুকরো টুকরো করে ফেলতে চেয়েছিলেন। সম্প্রতি প্রকাশিত হয়েছে […]
Lata Mangeshkar